1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. stsauto2@gmail.com : শেষ আলো : শেষ আলো
শিরোনাম :
 বেরোবি-র  উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহর বিরুদ্ধে দুর্নীতির ৪৬ অভিযোগ সিলেটে যুক্তরাজ্য থেকে আসা ২৮ জন যাত্রীর শরীরে করোনা পজিটিভ বিশ্বকাপ সুপার লিগে শুরুতে জিতে ১০ পয়েন্ট পেলো বাংলাদেশ আলোচিত সাবেক এমপি আউয়াল ও তাঁর স্ত্রীর সম্পদ ক্রোকের নির্দেশ পূর্বপুরুষের দেশ কলকাতা এসে অভিনেত্রী বনিতা সান্ধু জানলেন, তিনি কোভিড আক্রান্ত নতুন ইতিহাসঃ জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন, সম্পাদক ইলিয়াস খান ফাইজার ভ্যাকসিন গ্রহণের ১ সপ্তাহ পর নার্স করোনা পজিটিভ সরকার এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশের জন্য শীঘ্রই অধ্যাদেশ জারি করবে বাংলাদেশ ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন বাধ্যতামূলক করছে, যুক্তরাজ্য থেকে আসা যাত্রীদের প্যানডেমিক প্যাকেজে ট্রাম্পের সই

প্রধান বিচারপতি খায়রুল হক নিজের রায়ে নিজেই অবৈধ

  • Update Time : Sunday, June 12, 2011
  • 262 Time View

শেষ আলো ডটকম ১২ জুন ২০১১ : বিতর্কিত আপিল বিভাগের রায়ে বলা হয়েছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যাবস্থা অসংবিধানিক ও অবৈধ। তবে শান্তি শৃংখলা জনগনের নিরাপত্তা ও ধারাবাহিকতা রক্ষার সার্থে আগামী দুটি (দশম ও একাদশ) সংসদ নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে হতে পারে বলে অভিমত দিয়েছেন সর্বোচ্চ আদালত। একই সঙ্গে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা পদে বিদায়ী প্রধান বিচারপতি বা আপিল বিভাগের বিচারপতিকে বাদ রেখে তত্ত্বাবধায়ক সরকার পদ্ধতি সংস্কারের পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এই রায় দেন সাবেক প্রধান বিচারপতি খায়রুল হকের নের্তৃত্বে আপিল বিভাগের ছয় বিচারপতির বেঞ্জ।

এখানে যে ব্যবস্থা অবৈধ সেই ব্যবস্থায় আরো দশ বছর দেশ চলতে পারে এমন একটা অবজারবেশনের কথা বলা হয়েছে। আর সর্বোচ্চ আদালতের অবজারবেশন রায়েরই সমতুল্য। কেন বলা হয়েছে ? শান্তি শৃঙ্খলা জনগনের নিরাপত্তা ও ধারাবাহিকতার রক্ষার সার্থেই এমন স্ববিরোধী রায়ের যুক্তি বলে মনে করা হয়েছে। তার মানে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা অবৈধ ঘোষণায় জনগনের নিরাপত্তায় ব্যাঘাত ঘটতে পারে এ আশংকা মাথায় নিয়েই খায়রুল হক সাহেবের বেঞ্জ এই ব্যাবস্থা অবৈধ ঘোষনা করলেলন। যে সংবিধান মানুষের নিরাপত্তার ব্যাঘাত ঘটায় সে সংবিধান মানুষের জন্য নয়। ত্রয়োদশ সংশোধনী পাশ হয়েছিল সংসদে, নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের দ্বারা। যে সংসদ আইন দ্বারা বাতিল হয়নি এখনো।

এয়োদশ সংশোধনী যদি বাতিল হয় তবে বিচারপতি হাবিবুর রহমানের অধীনে যে, তত্ত্বাবধায়ক সরকার হয়েছে সেটা অবৈধ সে সরকার অবৈধ হলে ৯৬ থেকে ২০০১ সনের সংসদ অবৈধ। ৯৬ থেকে ২০০১ সনের আওয়ামীলীগ সরকার সে হিসাবে তাদের সব কার্যক্রম অবৈধ অনুরুপ ২০০১ সালের জাষ্টিস সাহাবুদ্দিনের তত্ত্বাবধায়ক সরকার অবৈধ একই ধারাবাহিকতায় তার অধীনে নির্বাচিত সংসদ এবং বি এন পি সরকার অবৈধ। সর্বশেষ ফকরুদ্দিন, মঈন উদ্দিন এর তত্ত্বাবধায়কসরকার অবৈধ। তাদের অধীনে নির্বাচন অবৈধ । নির্বাচিত বর্তমান সংসদ ও বর্তমান সরকার অবৈধ। বর্তমান সরকারের সকল কর্মকান্ড অবৈধ। জনাব বিচারপতি খায়রুল হক সাহেবকে জোষ্টতা লংঘন করে হোক আর যেভবেই হোক শেখ হাসিনার সরকার প্রধান বিচার পতি হিসাবে নিয়োগ দান করছেন। অতএব তার নিয়োগ ও ছিল অবৈধ। বিচারপতি খায়রুল হকের নিয়োগ অবৈধ হলে তার দেওয়া রায়তো বৈধ হতে পারেনা।

১৯৯১ সনে একটি উপনির্বাচনকে কেন্দ্র করে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের চিন্তাভাবনা শুরু হয়। ১৯৯৫ হইতে ১৯৯৬ আওয়ামীলীগ সংসদ বর্জন করে ব্যাপক আন্দোলনের মাধ্যমে বি এন পি কে সংবিধানে সংশেধনী আনতে বাধ্য করেন। সে হিসাবে তত্ত্বাবধায়ক সরকার অবৈধ হলে শেখ হাসিনার তথা আওয়ামীলীগের ৯৬ সনের আন্দোলনও অবৈধ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020 sheshalo
Site Customized By NewsTech.Com