1. litonsaikat@gmail.com : neelsaikat :
  2. stsauto2@gmail.com : শেষ আলো : শেষ আলো
শিরোনাম :
 বেরোবি-র  উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহর বিরুদ্ধে দুর্নীতির ৪৬ অভিযোগ সিলেটে যুক্তরাজ্য থেকে আসা ২৮ জন যাত্রীর শরীরে করোনা পজিটিভ বিশ্বকাপ সুপার লিগে শুরুতে জিতে ১০ পয়েন্ট পেলো বাংলাদেশ আলোচিত সাবেক এমপি আউয়াল ও তাঁর স্ত্রীর সম্পদ ক্রোকের নির্দেশ পূর্বপুরুষের দেশ কলকাতা এসে অভিনেত্রী বনিতা সান্ধু জানলেন, তিনি কোভিড আক্রান্ত নতুন ইতিহাসঃ জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন, সম্পাদক ইলিয়াস খান ফাইজার ভ্যাকসিন গ্রহণের ১ সপ্তাহ পর নার্স করোনা পজিটিভ সরকার এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশের জন্য শীঘ্রই অধ্যাদেশ জারি করবে বাংলাদেশ ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন বাধ্যতামূলক করছে, যুক্তরাজ্য থেকে আসা যাত্রীদের প্যানডেমিক প্যাকেজে ট্রাম্পের সই

কম খরচে ঘুরে আসুন ইন্দোনেশিয়ার বাটাম দ্বীপ

  • Update Time : Monday, August 6, 2018
  • 266 Time View

০৬ জুলাই ২০১৮ (শেষআলো ডটকম): ইন্দোনেশিয়ার অষ্টম বৃহত্তম শহর বাটাম । বালি এবং জাকার্তার পর বাটাম দ্বীপ (Batam Island) হচ্ছে ইন্দোনেশিয়ার তৃতীয় ব্যস্ততম প্রবেশ পথ। সিঙ্গাপুর থেকে নৌপথে মাত্র ২০ কিলোমিটার দূরে বাটাম, এতটাই কাছে যে সিঙ্গাপুরের সাগরপাড়ের উঁচু ভবন থেকে ইন্দোনেশিয়ার দ্বীপগুলোর দিকে তাকালে সহজেই চোখে পড়ে যায় রৌদ্রস্নাত বাটাম।

দক্ষিণ চীন সাগরের সুমাত্রা থেকে উত্তর-পূর্ব দিকে গোল হয়ে বেকে আনামবাস দ্বীপপুঞ্জ পর্যন্ত ছড়িয়ে থাকা দু’হাজার চারশরও বেশি দ্বীপ নিয়ে রিয়াও রাজ্যেটি। তারই একটি দ্বীপ বাটাম, স্থানীয় নাম কোটামাড্যা। বালি আর জাকার্তার পর ইন্দোনেশিয়ার তৃতীয় ব্যস্ততম প্রবেশদ্বার এবং অষ্টম বৃহত্তম শহর। আয়তন সিঙ্গাপুরের সমান, ১ হাজার ৫৯৫ বর্গকিলোমিটার।  এখানে ৬ টি দ্বীপে বিভক্ত ১৪ টি জেলা আছে। জনসংখ্যা  প্রায় ১১ লাখ। বাটামের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তের দূরত্ব ২৫ কিলোমিটার। ফলে ট্যাক্সি, মিনিবাস কিংবা বাসে চড়ে একদিনেই দ্বীপের পুরোটা ঘুরে দেখা সম্ভব।

বাটামের দক্ষিণ উপকূলে বেশ কয়েকটি ঝুলন্ত সেতু রয়েছে। সব সেতুগুলোকে একত্রে বেয়ারল্যাং ব্রিজ বলা হয়। আর বেয়ারল্যাং ব্রিজ এলাকা এখানে আগত পর্যটকদের কাছে সবচেয়ে জনপ্রিয়। সবুজের সমারোহ, সাগর সৈকত এবং ঝুলন্ত সেতুর সৌন্দর্য যেন মিলেমিশে একাকার। এই সৈকতে সূর্যাস্তেত দৃশ্য চোখে লেগে থাকবে অনেকদিন। এছাড়া বাটাম দ্বীপে ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা জাব্যাল আরাফা মসজিদ, মিনিয়েচার পার্ক, মহাবিহার দুতা বৌদ্ধমন্দির, মসজিদ রায়া, টুয়া প্যাং কং বৌদ্ধবিহার এবং নাগোয়া এলাকা ঘুরে দেখতে পারেন।

কিভাবে যাবেন

সিঙ্গাপুর থেকে ফেরিতে করে সবচেয়ে সহজ এবং স্বল্প অর্থ ব্যয়ে বাটাম দ্বীপ যাওয়া যায়।সিঙ্গাপুর শহরের হার্বারফ্রন্ট থেকে বাটামের ফেরি ছাড়ে প্রতি ঘন্টায়। শীততাপ নিয়ন্ত্রিত আধুনিক ফেরিতে যাওয়া-আসায় খরচ ৪৮ সিঙ্গাপুরি ডলার, বা প্রায়(৩ থেকে ৪ হাজার টাকা ।

তাই বাংলাদেশ থেকে সরাসরি বাটাম দ্বীপে যেতে চাইলে সিঙ্গাপুর হয়ে চলাচল করতে পারেন।  সিঙ্গাপুরের বিমানবন্দর হতে এমআরটি, বাস এবং ট্যাক্সিতে করে হারবারফ্রন্ট স্টেশনে আসতে পারবেন।  ইমিগ্রেশনে বাংলাদেশ ফেরার রিটার্ণ এয়ার টিকেট, হোটেল বুকিং স্লিপ, ডলার সহ প্রয়োজনীয় অন্যান্য কাগজপত্র দেখাতে হবে। ঢাকা-সিঙ্গাপুর-ঢাকা রুটে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স, টাইগার এয়ার এবং বাংলাদেশ বিমান নিয়মিতভাবে সিঙ্গাপুরগামী ফ্লাইট পরিচালনা করে আসছে।

কোথায় থাকবেন

বাটাম দ্বীপে অসংখ্য হোটেল ও রিসোর্ট রয়েছে। হোটেল ভাড়া সিঙ্গাপুরের তুলনায় প্রায় অর্ধেক। এখানে অল্প অর্থ ব্যয়ে পাঁচ তারকা হোটেলে থাকতে পারবেন। তবে অনলাইনে ট্রিপ অ্যাডভাইজার কিংবা যেকোন বিশ্বস্থ ওয়েবসাইট থেকে অগ্রিম হোটেল বুক করে রাখাইনিরাপদ। তবে  নিচের লিং এর মাধ্যমে আপনি আপনার পছন্দের হোটেলটি এখনই বুক করতে পারেন :

https://www.kayak.com/Batam-Hotels.29445.hotel.ksp?gclid=CjwKCAjw-vjqBRA6EiwAe8TCk8mbRItUhfqHvwUI4_8tLOBx3E9Ni5jmhmYsV0VCjxDaGfPrJjGB0xoC5T0QAvD_BwE

 

কোথায় খাবেন

বাটামের খাবারের জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় বেংকং এলাকার গোল্ডেন প্রন সি ফুড রেস্তোরাঁ। বৈচিত্র্যময় খাবার খাওয়ার পাশাপাশি এই রেস্তোরাঁর কাছে অবস্থিত মিনিয়েচার পার্ক এলাকা ঘুরে দেখার সুযোগ মিস করা ঠিক হবে না।

কেনাকাটা

বাটাম দ্বীপ কেনাকাটার জন্য পর্যটকদের কাছে এটি যেন এক স্বর্গরাজ্য। শুল্কমুক্ত হওয়ায় সবকিছুর দাম এখানে তুলনামূলক কম। তাই অনেকেই সিঙ্গাপুর ভ্রমণে আসলেও কেনাকাটার জন্য বাটাম ঘুরতে যান। এখানে কেনাকাটার জন্য মেগা মল শপিং সেন্টার, কেপরি মল, নাগোয়া হিল মল, হারবার বে মল, প্লাজা টপ, ডায়মন্ড সিটি ও প্যানবিল মলের মতো অনেক বিপণিবিতান রয়েছে

 

 দরকারি তথ্য

ঢাকা থেকে সিঙ্গাপুর সেখান থেকে ফেরিতে বাটাম, সবচেয়ে সহজ ও সাশ্র্রয়ী। এজন্য অবশ্যই সিঙ্গাপুরের ডাবল এন্ট্রি ভিসা থাকতে হবে। দু’দেশের ইমিগ্রেশনের সময় বাংলাদেশ ফেরার বিমান টিকেট, হোটেল বুকিং স্লিপ, পর্যাপ্ত ডলারসহ প্রয়োজনীয় সব কাগজপত্র সাথে রাখতে হবে।

ঢাকা-সিঙ্গাপুর-ঢাকা রুটে বাংলাদেশ বিমান, রিজেন্ট এয়ারওয়েজ, সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স ও টাইগার এয়ারের নিয়মিত ফ্লাইট আছে। এর মধ্যে বিমানটিকেট, হোটেল, টান্সফারসহ রিজেন্ট এয়ারওয়েজের সাশ্রয়ী প্যাকেজ আছে সিঙ্গাপুরের জন্য। বাটামে হোটেল-রিসোর্টের ছড়াছড়ি। দাম সিঙ্গাপুরের অর্ধেক। অনলাইনে কিংবা সিঙ্গাপুরে গিয়ে বুকিংও করা যায়। কিংবা নিতে পারেন সিঙ্গাপুরের ট্যুর এজেন্সিগুলোর বাটাম প্যাকেজ।

 

 সতর্কতাঃ

হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020 sheshalo
Site Customized By NewsTech.Com